সিটি কর্পোরেশনের ‘১৭ নং ওয়ার্ড তামাকমুক্ত ঘোষণা’ শীর্ষক ক্যাম্পেইন

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক:
রাজশাহীর মানবাধিকার ও উন্নয়ন সংস্থা ‘এ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেভেলপমেন্ট-এসিডি’র সহযোগিতায় ও ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের আয়োজনে ‘রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ১৭ নং ওয়ার্ড ‘তামাকমুক্ত ঘোষণা শীর্ষক’ ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার বিকালে ক্যাম্পেইনটি ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে ওয়ার্ডের ভগি বালাপাড়া বউ বাজার এলাকায় গিয়ে শেষ হয়। এসময় মোড়ে মোড়ে বিভিন্ন দোকানপাটে তামাক কোম্পানি কর্তৃক প্রদত্ত বিজ্ঞাপন অপসারণ, রেস্টুরেন্টে সাইনেজ প্রদান ও লিফলেট বিতরণ করা হয়।

এরআগে ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ে ক্যাম্পেইন সম্পর্কিত এক আলোচনা সভায় ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আব্দুল গাফ্ফার বলেন ‘তামাক ব্যবহারের প্রভাবে হৃদরোগ, পক্ষাঘাত, ফুসফুসের ক্যান্সার, যক্ষা, হাঁপানী, অপরিপক্ক ও কম ওজনের শিশু জন্ম, মুখ ও খাদ্যনালীর ক্যান্সার ইত্যাদি রোগ হয়ে থাকে। তাই সবাইকে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন মেনে চলতে হবে এবং পরিবার থেকে তামাক সেবন না করার বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে।’

আলোচনা সভায় আরও বলা হয়, এ আইন অনুযায়ী- বিক্রয়স্থল থেকে যে কোন উপায়ে তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন ও প্রচারণা নিষিদ্ধ। যে কোন ধরনের উপহার ও পুরস্কার প্রদান, তামাকপণ্যের মোড়ক প্রদর্শন, লিফলেট-পোস্টার-স্টিকার প্রদর্শন বা বিতরণ আইনত: দণ্ডনীয় অপরাধ। উপরিউক্ত বিষয় বিবেচনা করে সরকারের তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন যে ধূমপানমুক্ত গাইডলাইন গ্রহণ করেছে তা আমাদের জনপ্রতিনিধি হিসেবে বাস্তবায়ন করা জরুরি।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর বলেন, রংপুর নগরীকে স্বাস্থ্যসম্মত নগরী হিসেবে গড়ে তলতে হবে। তাই রংপুরের সকল পাবলিক প্লেসকে তামাকমুক্ত করতে আমার ওয়ার্ডকে তামাকমুক্ত ঘোষণার মাধ্যমে এই ক্যাম্পেইনের আয়োজন। তামাকমুক্ত রংপুর নগরী গড়ার জন্য আমার ওয়ার্ডে তামাকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন (২০০৫) বাস্তবায়নে করতে চাই। তামাকমুক্ত করার জন্য পাবলিক প্লেসে তামাকজাত দ্রব্য নিষিদ্ধ, দোকানের অবৈধ বিজ্ঞাপন না রাখা, ছোটদের কাছে সিগারেট বিক্রি না করা এবং হোটেল, রেস্টুরেন্ট ও অফিসে তামাক নিষিদ্ধকরণ সাইনেজ রাখা বাধ্যতামূলক করাতে পারবো বলে আশা করি।’

ক্যাম্পেইনে ক্যাম্পেইনে এন্টি টোব্যাকো মিডিয়া এলায়েন্স-আত্মার রংপুর অঞ্চলের সদস্যবৃন্দ, এসিডির প্রোগ্রাম ম্যানেজার মো. কাহীনুর রহমান, মিডিয়া ম্যানেজার আমজাদ হোসেন শিমুল, এডভোকেসি অফিসার মো. তুহিন ইসলাম, প্রোগ্রাম অফিসার তৌফিকুল ইসলাম, রংপুরের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যাল ও কলেজের শিক্ষার্থী শিক্ষার্থী এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.