রংপুরের ঐতিহ্যবাহী খাবার ‘সিদল’

- Advertisement -

সিদল রংপুরের প্রতিটি পরিবারের কাছেই কমবেশি পরিচিত। ছোট মাছের শুকনো শুঁটকি আর কচুর ডাটা দিয়ে তৈরি হয় সিদল। সঙ্গে পর্যায়ক্রমে আদা, রসুন, হলুদ, সরিষার তেল, খাবার সোডা আর এলাচও দিতে হয়। সম্পূর্ণ আলাদা বৈশিষ্ট্য ও স্বাদের কারণে সিদল রংপুর অঞ্চলের মানুষের একটি অতিপ্রিয় খাবার। এটা শীতকাল এবং বর্ষার মৌসুমে সকালের খাবারে গ্রামাঞ্চলে বেশি খেতে দেখা যায়।

মূলত মলা, পুঁটি জাতীয় বিভিন্ন ধরনের ছোট মাছ ব্যবহৃত হয় সিদল তৈরিতে। প্রথমে ছোট মাছগুলো ভালো করে ধুয়ে কুটে পরিষ্কার করে সপ্তাহখানেক কড়া রোদে শুকিয়ে শুঁটকি করে নিতে হয়। পরে মাছের শুঁটকিগুলো ঢেঁকিতে নয়তো উরুনগান (বড় আকারের কাঠের হামানদিস্তা) বা শিল-পাটায় আধা গুঁড়ো করে নিতে হয়। আবার ব্লেন্ডারেও শুঁটকি আধা ভাঙা করে নেওয়া যায়।

শুঁটকি আধা ভাঙা করা শেষ হলে একই পরিমাণ সাদা মানকচু বা কালো কচুর ডাঁটা ধুয়ে নিয়ে কাঁচা অবস্থাতেই বাটতে হয়। কচুবাটার সঙ্গে মলা, ডারকা বা পুঁটি মাছের আধা ভাঙা গুঁড়া, প্রয়োজন মতো আদা, রসুন এবং কিছু পরিমাণ খাবার সোডার মিশ্রণে ধীরে ধীরে সবকিছুর সঙ্গে মেশানো হয়। সব মেশানো হয়ে গেলে হলুদ ও সরিষার তেল দিয়ে মেখে হাত দিয়ে গোল বা চ্যাপটা করে এক সপ্তাহ কড়া রোদে শুকাতে হবে। ডালা বা কুলায় জাল দিয়ে ঢেকে (যাতে কাক বা পাখি খেতে না পারে) শুকিয়ে এগুলো একটু শক্ত হয়ে গেলে তৈরি হয়ে যায় সিদল। অনেকে আবার মালা করে শুকিয়ে নেন। এভাবে তৈরি সিদল বহুদিন রেখে খাওয়া যায়।

সিদল তেলে ভেজে নিয়ে পরে প্রয়োজন মতো শুকনা মরিচ, রসুন, পেঁয়াজ, লবণ দিয়ে ভর্তা করে খাওয়া হয়। কোথাও কোথাও তেলে না ভেজে কলার পাতায় মোড়ানো সিদল চুলার আগুনে পোড়ানো হয়। পরে কলার পাতা কালো রং ধারণ করলে সিদল বের করে প্রয়োজন মতো শুকনা মরিচ, রসুন, পেঁয়াজ, লবণ দিয়ে ভর্তা করা হয়।

এখনো গ্রামগঞ্জের হাট-বাজারে সিদল বিক্রি হয়। জোড়া প্রতি সিদল ৩০-৪০ টাকা করে বিক্রি হয়ে থাকে। তবে শহুরে জনপদে সিদল সহজলভ্য নয়।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.