ধানক্ষেতে প্রদীপ পুজো!

- Advertisement -

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:
আধুনিকতার চরম উৎকর্ষতার এ যুগেও ফসল বাচাঁতে ঠাকুরগাঁওয়ে ধান ক্ষেতে প্রদীপ জ্বালিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে বিশেষ পুজা ।

গত দুদিন ধরে এই বিশেষ পুজো আয়োজন হয় সদর উপজেলার শাসলা পিয়ালা সহ বিভিন্ন গ্রামে। জমির ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি এবং পোকামাকড়ের খপ্পর থেকে ফলস বাঁচাতে হিন্দু সমাজের কৃষকরা এই পুজা আয়োজন করে। পুরনো রীতি মেনেই এই পুজা আয়োজন করে তারা।

শাসলা পিয়ালা গ্রামের কামিনী রায় বলেন, আশ্বিনের শেষ কার্তিকের শুরুতে এই পুজা করা হয় প্রতিবছর । তবে এটি কোন ধর্মিয় পুজা নয়, সামজিক প্রথা ।হিন্দু ছাড়া ও অন্য সমাজের কৃষকরা ধান ক্ষেতে প্রদীপ প্রজ্জ্বলিত করে ।

লোকসংষ্কৃতিক কর্মী ও শিক্ষক প্রফুল্ল রায় জানিয়েছেন, এই পুজোকে ক্ষেতি অর্থাৎ খেতের ফসল রক্ষার জন্য পুজা বলা হয়। ডাকলক্ষী বলে পরিচিত অনেকের কাছে।ফসলকে পোকামাকড় থেকে রক্ষা করার জন্য যেহেতু ডাক দেয়া হয়, সেই জন্যই একে ডাকলক্ষ্মী বলা হয়।

টোলার হাট গ্রামের কৃষক নৃপতিভূষণ রায় জানান, ফসলের জমিতে আলোর ফাঁদ , সেক্স ফেরোমন ফাঁদ বসানো বিজ্ঞানসম্মত ।জমির ধান পোকামাকড়ের আক্রমণ থেকে বাঁচাতে এখন আমরা বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক ব্যবহার করে থাকি। এতে কৃষি উৎপাদনের খরচও বেড়েছে। কিন্তু জৈব্য পদ্ধতিতে পোকা দমনে যেমন নিরাপদ খাদ্য মিলে । প্রকারান্তে উৎপাদন খরচ সাশ্রয় হয় ।

তিনি বলেন, হিন্দু সম্প্রদায় এটাকে পুজো হিসেবে নিয়ে এই জৈব্য কীটনাশক গুঁড়ো ধান ক্ষেতে ছিটিয়ে পোকা দমন করে ।

তবে এ প্রঙ্গঙ্গে ঠাকুরগাঁও জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আফতাব হোসেন বলেন এটা তাদের লোকজ সংস্কৃতি । তবে কৃষি বিভাগ ধান ক্ষেতে আলোর ফাঁদ বসিয়ে ক্ষতিকর চিহ্নিত করে ওই পোকা দমনে কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হয় ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.