আবু ত্ব-হাকে নিয়ে আলোচনা চলছেই


আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান

আদালতের নির্দেশে পুলিশ আলোচিত ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানকে তার মা আজেদা বেগমের হাতে তুলে দেয়ার পর তিনি বাড়িতে ফিরে গেলেও তাকে নিয়ে এখনো আলোচনা-সমালোচনা চলছে গাইবান্ধার বিভিন্ন স্থানে।

গাইবান্ধা সদর উপজেলার বোয়ালী ইউনিয়নের পশ্চিম পিয়ারাপুর গ্রামে তার বন্ধু সিয়াম ইবনে শরীফের বাসায় আবু ত্ব-হা ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে থাকার বিষয়টি এখনো অনেকের কাছে রহস্যজনক। সাত দিন ধরে ত্ব-হা কেন এভাবে আত্মগোপন করে থাকল তা নিয়ে মানুষের মধ্যে এখনো কথাবার্তা চলছে।

তবে সিয়ামের মা নিশাত নাহার জানান, ত্ব-হা এর আগেও বেশ কয়েকবার তাদের বাড়িতে এসেছিলেন। তখন এখানে স্থানীয় বিভিন্ন মসজিদে ইসলামি বিষয়ে ধর্মীয় আলোচনা করতেন। তার মধ্যে কোনো রাজনৈতিক কথাবার্তা শোনা যায়নি। তবে ত্ব-হা এবারে এ বাড়িতে এসে একেবারে নীরব ছিল। কোথাও সে বের হয়নি।

তিনি জানান, সাত দিন এখানে থাকার পর সে রংপুরে তাদের বাড়িতে চলে যায়।

সিয়ামের মা নিশাত নাহার জানান, ত্ব-হা এবং তার ছেলে সিয়াম ছোটবেলার বন্ধু। তারা রংপুরে একই স্কুলে লেখাপড়া করতো। তারা একসঙ্গে এসএসসি পাস করে।

সিয়ামের বাবা শরীফ নেওয়াজ রংপুরে একটি বেসরকারি ব্যাংকে কর্মরত ছিলেন। সে উপলক্ষে সিয়ামের মা নিশাত নাহারও তার একমাত্র সন্তান সিয়ামকে নিয়ে রংপুরে থাকতেন। বর্তমানে তার ছেলে রংপুরে একটি মোবাইল কোম্পানিতে কর্মরত।

তিনি বলেন, সিয়ামকে আমি যতদূর জানি সে একজন ভালো ছেলে। সে ইসলামি দর্শন নিয়ে চর্চা করে। সিয়ামের বাবার চাকরি শেষ হওয়ার পর নিশাত নাহার গাইবান্ধায় গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন। ১৫ মাস আগে সিয়ামের বাবা মারা গেছেন।

নিশাত নাহার জানান, সিয়ামের বাবা বেঁচে থাকতেই ত্ব-হা এ বাড়িতে বেশ কয়েকবার আসা-যাওয়া করেছে। তার মধ্যে আমরা খারাপ কোনকিছু দেখিনি।

তিনি বলেন, তার ছেলের বন্ধু কোনো বিপদে পড়েনি কোনো অসৎ সংসর্গে যায়নি এটাই আমার পরম তৃপ্তি। তবে সাধারণ মানুষের মাঝে সিয়ামদের এ বাড়িতে ত্ব-হার আত্মগোপনে থাকার বিষয়টি নিয়ে এখনো কৌতূহলের শেষ নেই। তাদের মধ্যে একটি প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে- সাত দিন ত্ব-হা কেন এখানে ছিল। কেউ তার অবস্থান সম্পর্কে আগে কেন জানেনি- এই প্রশ্ন এখন এলাকার মানুষের মধ্যে আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

নিউজ সোর্স : আবু ত্ব-হাকে নিয়ে আলোচনা চলছেই

Leave A Reply

Your email address will not be published.