পীরগাছায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

- Advertisement -

পীরগাছা প্রতিনিধি:
রংপুরের পীরগাছায় সৈয়দপুর কারামতিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বসির উদ্দিনের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর ও গভার্নিং বডির সভাপতি বেশ ক’বার মাদ্রাসার সহকারি অধ্যাপক কোহিনুর বেগমকে বিধি মোতাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদানের জন্য নিদের্শ দেয়া হলেও তিনি কর্নপাত করছেন না। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে মাদ্রাসার ঘর বিক্রি, জমি বন্ধক রেখে প্রায় লক্ষাধিক টাকা আত্ত্বসাত করার অভিযোগ রয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার সৈয়দপুর কারামতিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষের মেয়াদ শেষ হলে গভার্নিং বডির কয়েকজন সদস্য যোগসাজসে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে বসির উদ্দিনকে গত ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ নিয়োগ দেন। যা বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (মাদ্রাসা) জনবল কাঠামো ও এপিও নীতিমালা-২০১৮ এর নীতি বহির্ভুত।

এ নীতিমালার ১১.৬-এ স্পস্ট বলা আছে যে, “বয়স ৬০ বছর পূর্ণ হবার পর কোন প্রতিষ্ঠানে প্রতিষ্ঠান প্রধান/সহ: প্রধান/ মিক্ষক-কর্মচারিকে কোন অবস্থাতেই পূন:নিয়োগ কিংবা চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়া যাবেনা।”

এ নিয়োগে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে না পাওয়া সহকারি অধ্যাপক কোহিনুর বেগম মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরে গত ১৪ সেপ্টেম্বর একটি অভিযোগ করেন। এর প্রেক্ষিতে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে গত ২৪ অক্টোবর কোহিনুর বেগমকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদানের জন্য গভার্নিং বডিকে নিদের্শ দেন। পরে গভার্নিং বডির সভাপতি আব্দুল হাকিম সরদার গত ২ নভেম্বর এবং ২ ডিসেম্বর বসির উদ্দিনকে দায়িত্ব বুঝে দেয়ার জন্য নিদের্শ দিলেও তিনি কর্ণপাত করছেন না।

Karamatia Sinior Madarasahraমাদ্রাসা সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে- বসির উদ্দিন মাদ্রাসার একটি টিনের আধাপাকা ঘর ৮২ হাজার টাকা নিলামে বিক্রি করে মাদ্রাসার তহবিলে জমা না দিয়ে আত্মসাত করেন। এমনকি গভার্নিং বডির টিআর সদস্য আব্দুস সালাম ও অভিভাবক সদস্য রেজাউল করিমের যোগসাজসে বন্ধকি জমির উপর অতিরিক্ত ২০ হাজার টাকা গ্রহণ করে পকেটস্থ করেন। বর্তমানে মাদ্রাসাটির শিক্ষক ও গভার্নিং বডির সদস্য এবং অভিভাবকদের মাঝে দ্বিধাদ্বন্দ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে মাদ্রাসাটিতে পরিচালনা কার্যক্রমে মুখ থুবড়ে পড়েছে।

এ বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বশির উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি টাকা আত্মসাত করার কথা অস্বীকার করে বলেন, দায়িত্ব অর্পণের চিঠি নিয়ম মাফিক না হওয়ায় আমি গ্রহণ করিনি।

এ ব্যাপারে মাদ্রাসার গভার্নিং বডির সভাপতি আব্দুল হাকিম সরদার বলেন, পর পর দু’বার দায়িত্ব অর্পন এবং ঘর বিক্রি ও জমির টাকা মাদ্রাসার তহবিলে জমার নিদের্শ দেয়া হলেও তিনি কোন কর্ণপাত করছেন না।

Print Friendly, PDF & Email

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.